অসুখি দাম্পত্য জীবনের লক্ষণগুলো কী?

সব সম্পর্কই চিরকাল স্থায়ী হয় না। কোনো কোনো সম্পর্ক এক পর্যায়ে গতিহীন ও লক্ষ্যহীন হয়ে পড়ে। এমন অনেক সময় রয়েছে যখন দীর্ঘদিন একে অপরের সঙ্গে থাকার পরেও ধীরে ধীরে একটি প্রেমহীন সম্পর্কের মধ্যে রূপান্তরিত হতে শুরু করে। কখনো কখনো, এর গতি এত ধীর হয় যে আপনি কীভাবে সেখানে গিয়েছিলেন তা বুঝতে পারবেন না। সে তো রয়েছেই- এমন ভাবনা থেকে যদি আপনি তার সঙ্গে ভালো সময় কাটানো বা মজা করা থেকে বিরত থাকেন তবে আপনি বুঝতেও পারবেন না, কখন আপনারা একটি অসুখি দম্পতিতে পরিণত হবেন! টাইমস অব ইন্ডিয়া প্রকাশ করেছে এমন কিছু লক্ষণের কথা, যা দেখে বোঝা যাবে আপনার দাম্পত্য জীবন অসুখি হতে চলেছে।

মানসিক এবং শারীরিক ঘনিষ্ঠতার অভাব
মানসিক এবং শারীরিক ঘনিষ্ঠতার সংমিশ্রণই বিয়ের সম্পর্ককে রোমান্টিক করে তোলে। যখন উভয় জিনিস অনুপস্থিত থাকে তখন আপনি অসন্তুষ্ট বোধ করবেন, এটাই স্বাভাবিক। তাই আপনাদের ভেতর শারীরিক ও মানসিক সম্পর্ক যথাযথ আছে কি-না তা খেয়াল করে দেখুন। দু’জনের প্রচেষ্টায়ই একটি সুন্দর দাম্পত্য সম্পর্ক টিকিয়ে রাখা সম্ভব।

আপনি বিবাহবিচ্ছেদ সম্পর্কে ভাবছেন
আপনি যদি এমনটা ভেবে থাকেন যে অন্য কাউকে বিয়ে করলে ভালো হতো বা সিঙ্গেল হওয়ার পরিকল্পনা করেন, তবে তা অবশ্যই চিন্তার বিষয়। আপনার বাস্তব বিবাহিত জীবনের সাথে একটি কাল্পনিক জীবনের তুলনা করা স্বাভাবিক। তবে আপনি যদি অন্য কারও সাথে বিবাহিত হওয়ার কথা কল্পনা করে থাকেন তবে এটি এমন একটি লক্ষণ, যা আপনার স্বামী/স্ত্রীর প্রতি অনুভূতিহীনতার প্রকাশ করে।

সব সময় একা লাগে
দু’জন পাশাপাশি একই খাটে বসে আছেন হয়তো, কিন্তু আপনি একে অপরের সাথে নয় বরং বিভিন্ন কাজ করে সময় ব্যয় করছেন। এমনটা যদি বেশিরভাগ সময় ঘটে থাকে তবে এটি একটি চিহ্ন যে, আপনাদের দুজনের সম্পর্ক আর শক্ত অবস্থানে নেই।

কোনো আনন্দ অবশিষ্ট নেই
বিয়ে দু’জনের জন্য আনন্দদায়ক হয় যদি তারা একসাথে মজা করতে জানে। তারা অবিচ্ছিন্নভাবে একে অপরের সাথে এমন কাজ করে যা বৈবাহিক সম্পর্ককে আনন্দময় করে রাখে। তবে যদি আপনাদের মধ্যে আরও বেশি মতবিরোধ হয় এবং আপনাকে বারবার বড় আপস করতে হয় তবে এর অর্থ- দুজনই নড়বড়ে জায়গায় আছেন। বিয়ের আর কোনো আনন্দ বাকি নেই এবং আপনি কীভাবে এটি সুন্দর রাখতে পারবেন তা আর জানেন না।

কথায় মোটেই যুক্তি নেই
প্রতিটি কথোপকথনেই যুক্তি খোঁজা একেবারেই যুক্তি না দেয়া, উভয়ই একটি অসুখি দাম্পত্যের লক্ষণ। আপনি এবং আপনার সঙ্গী যদি একে অপরের সাথে আলোচনা না করে বরং এড়িয়ে চলেন, যুক্তিহীন বিষয়গুলো সামনে এনে তর্ক করেন তবে বুঝে নেবেন, আপনাদের সম্পর্ক আর আগের অবস্থানে নেই।

যেকোনো একজন সম্পর্ক রক্ষা করে চলছেন
সুস্থ সম্পর্কের ক্ষেত্রেও দু’জনের মধ্যে তর্ক হতে পারে। সব বিষয়েই সঙ্গীর মতামতের সাথে একমত হওয়াও ঠিক নয়। ভালো শ্রোতা হওয়া উত্তম। তবে আপনি বা আপনার সঙ্গী যদি সবসময় অপরজনের পছন্দগুলো মেনে নেন, সেটিও দাম্পত্যকে অসুখী করে তুলতে পারে।

অন্য কারো প্রতি আকৃষ্ট হলে
নতুন বা সুখি দাম্পত্য জীবনে দুটি মানুষ একে অপরের সঙ্গী হবেন এবং অন্য কাউকে কাছে ঘেঁষতে দেবেন না। তবে একটি অসুখি দাম্পত্য জীবনে, এই বিষয়টি ম্লান হয়ে যায়। আপনি যদি কাউকে আপনার সঙ্গীর চেয়ে আরও আকর্ষণীয় মনে করেন তবে তা সম্পর্ক নষ্ট করার জন্য যথেষ্ট।

Related Posts

© 2022 Totka24x7 - Theme by WPEnjoy · Powered by WordPress