এবার বাংলার বর্ষার পথে বাধা হয়ে রয়েছে ইনি, এমনটাই দাবী আবহাওয়া দপ্তরের

More articles

টোটকা24×7 নিউজ ডেস্ক: হাঁসফাঁস গরম গ্রীষ্মের প্রচণ্ড দাবদাহে বঙ্গবাসী পুরো অতিষ্ঠ শুধু তাই নয় এই গরমের দাবদাহে প্রচুর মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছেন‌। মে মাস শুরু হতে হতেই কলকাতা রানিগঞ্জ এসব জায়গায় তাপমাত্রা পৌঁছে গেছে 42 ডিগ্রী থেকে 44 ডিগ্রী অবধি। মাঝখানে ফনির ঝড়ে কিছু কিছু জায়গায় বৃষ্টি হলেও সকল রাজ্যের ফনি প্রভাব ফেলতে পারে নি তাই কিছুদিনের মধ্যেই আবহাওয়া সেই আগের মতই রূপ ধারণ করেছে।এই ধরনের তাপমাত্রা গ্রামবাসীদের আরো অস্বস্তিতে ফেলেছে। সেখানে শহরের মতো টাইম কল না থাকায় প্রবল জল কষ্টতে ভুগতে হচ্ছে গ্রামবাসীদের। অনেক নদী পুকুরের জল কমে গেছে।

এরই মধ্যে বুধবার মৌসম ভবন ঘোষণা করেছিলেন কেরলে বর্ষার ঢোকার দিন পিছিয়ে গেছে। 6 জুন বর্ষা ঢোকার কথা ছিল।  এর আগে পূর্বাভাসে স্কাইনেট জানিয়েছিল স্বাভাবিকের চেয়ে এ বছর বৃষ্টিপাত কম হবে 22 মে বর্ষা আন্দামান-নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের প্রবেশ করবে আর সেখান থেকে কেরলের দিকে ধেয়ে যাবে মৌসুমি বায়ু ।কিন্তু সময়ের আগে দক্ষিণের রাজ্যে প্রবেশ করলেও তার পর থেকে গতি মন্থর হয়ে গেছে ।পূর্বাভাস অনুযায়ী 29 শে জুন বর্ষা পৌঁছাবে রাজধানী সেই কারণে যতটা বর্ষণের আশা করা গিয়েছিল ততটা বর্ষণ হবেনা।

সাধারণত এই ধরনের কোন প্রাকৃতিক পরিস্থিতি বৃষ্টির সম্ভাবনা বেশি থাকে কিন্তু এক্ষেত্রে হয়েছে তার উল্টো আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে কেরল কর্ণাটক উপকূলে নিম্নচাপ তৈরির সম্ভাবনা রয়েছে নিম্নচাপের জেরে কেরলে ঢোকার আগে গতি হারাতে পারে মৌসুমী বায়ু ।এর জের স্বাভাবিকভাবেই পড়বে বাংলার বর্ষার ওপরেও ।পাশাপাশি হাওয়া অফিসের জানাচ্ছে যে এখনো ওই রাজ্যের পুরো এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে নি। মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে কেরল এবং দক্ষিণ তামিলনাড়ুতে শুক্রবার থেকে বৃষ্টি শুরু হয়েছে কিন্তু বাকি এলাকায় এখনো বৃষ্টি ছড়ায় নি

হাওয়া অফিসের খবর আন্দামান থেকে বর্ষার একটা শাখা অবশ্য মায়ানমারে ছড়াচ্ছে সোমবার অর্থাৎ কালকে সেটি মিজোরামের ঢুকতে পারে ।মৌসম ভবন এর খবর মধ্য ভারতে আরও তিন দিন এই তাপের প্রবাহ বইবে এল নিনো পরিস্থিতি প্রশান্ত মহাসাগরের জলের তাপমাত্রা বেশি থাকার ফলে এবার বর্ষা শুরুতে দুর্বল থাকবে যা রাজ্যে বর্ষা পৌঁছাতে দেরি হাওয়ায় অন্যতম কারণ।

Latest