এবার স্থির রোগীরাও মনের ভাব প্রকাশ করার জন্য আবিষ্কৃত হলো যন্ত্র!

হাসপাতালে মুমূর্ষু রোগীর কথা বলা তো দূরে থাক, কোনো ধরনের নড়াচড়াই করাই দায়। কিন্তু এখন নিস্তেজ হয়ে হাসপাতালের বিছানায় থেকে তারা কী ভাবছেন-তাও বলে দেওয়া সম্ভব। এমনই এক প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন বিজ্ঞানীরা।

বিজ্ঞানীদের গবেষণার বরাত দিয়ে এমনটাই জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, ওইসব অসুস্থ ব্যক্তিদের মনের ভাব বুঝতে পারবে একটি কম্পিউটার এবং সেটিই প্রকাশ করবে উত্তরগুলো। তারা জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে কম্পিউটারটি শুধুমাত্র ‘হা’ এবং ‘না’ বোধক উত্তর প্রকাশ করতে পারবে।

সম্প্রতি সুইজারল্যান্ডের একটি হাসপাতালে চারজন রোগীর ওপর এর সফল পরীক্ষা চালানো হয়। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, নড়াচড়া করতে অক্ষম রোগীরা তাদের চোখের মাধ্যমে মনের কথা প্রকাশ করতে পারেন। তবে সুইজারল্যান্ডে যেসব রোগীদের ওপর এসব পরীক্ষা চালানো হয় তারা কেউ চোখ নড়াচড়া করতে পারতেন না।

তারা জানান, ওইসব রোগীদের একজনকে তার স্বামীর নাম জিজ্ঞাসা করা হয়েছিলো। প্রশ্নের ধরণ ছিলো ‘হা’ এবং ‘না’ বোধক। এ গবেষণার সঙ্গে যুক্ত প্রফেসর উজ্জল চৌধুরী জানান, এ গবেষণার ফলে তাদের জীবনধারার পরিবর্তন ঘটবে।

‘ধরুন, আপনি কোনো ধরনের যোগাযোগ করতে পারেন না তবে আপনি হা অথাবা না জাতীয় উত্তর দিতে পারেন সেক্ষেত্রে কেমন হবে বিষয়টি। অবশ্যই এটি আপনার জীবনে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে,’ বলেন তিনি।

একটি ঘটনার কথা উল্লেখ করে এই গবেষক বলেন, একটি মেয়ে তার পছন্দের ছেলেকে বিয়ে করতে বাবার কাছে অনুমতি চাইতে এসেছিলো। কিন্তু মেয়েটির বাবা কথা বলতে পারতেন না, সেই সঙ্গে নড়াচড়াও। কিন্তু কম্পিউটারের মাধ্যমে মেয়েটির বাবা তাকে বিয়ে করতে মানা করেন। সে তার উত্তরও পেয়েছেন।

উজ্জল চৌধুরী আরও জানান, আমরা তাকে ১০বার প্রশ্ন করেছি। তবে তিনি আটবারই ‘না’ বোধক উত্তর দিয়েছেন। তবে কেনো তিনি এই উত্তর দিয়েছেন তা আমরা বের করতে পারিনি।

ওয়েস সেন্টারের ডিরেক্টর জন ডুনোঘুয়ে জানিয়েছেন, যদি কোনো ব্যক্তি পুরোপুরি স্থির হয়ে থাকে। তার সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়। তবে এটি চিকিৎসা বিজ্ঞানে অসাধারণ সাফল্য।