৩০-এর পর কি আপনি বয়স ধরে রাখতে চান! মেনে চলুন এই পদ্ধতি

বাড়ছে বয়স। বয়সের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে দেখা দিচ্ছে ত্বকে নানা সমস্যা। কুড়ির পর বুড়ি না হলেও ত্রিশে ত্বকে দেখা দেয় নানা সমস্যা। বিশের পর ও ত্রিশের কোটার বয়েসীরা কীভাবে যত্ন নেবেন ত্বকের, সে বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন রূপবিশেষজ্ঞ রাহিমা সুলতানা রীতা

অতিরিক্ত তৈলাক্ত: ভাপসা গরমে ত্বকের তৈলাক্ততা বেড়ে যায়। অতিরিক্ত তৈলাক্ততা দূর করতে সিদ্ধ ওটস, ডিমের সাদা অংশ, লেবুর রস ও থেঁতো করা আপেল একসঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগান। ১৫ মিনিট পর ঠাণ্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

ত্বকে ব্রণের সমস্যা: জায়ফল বেটে কাঁচা দুধের সঙ্গে মিশিয়ে লাগান। ঘণ্টাখানেক পর ভালো করে ধুয়ে নিন। ব্রণ হলে কখনই নখ লাগাবেন না। এতে মুখে ব্রণের দাগ স্থায়ীভাবে বসে যেতে পারে। ব্রণমুক্ত থাকতে নিয়মিত ফেসিয়াল করান। ব্রণের জন্য স্পেশাল একনে ফেসিয়াল করতে পারেন। এতে ব্রণ কমবে।

চোখের নিচে কালি: চোখের নিচে কালি পড়ে অতিরিক্ত টেনশন, রাত জাগার কারণে। এ থেকে মুক্তি পেতে রাতে ঘুমানোর আগে শসা বা আলুর রস চোখের নিচে লাগিয়ে রাখুন। সকালে উঠে ধুয়ে ফেলুন।

রোদে পোড়া: সানবার্নে মুখে ছোপ ছোপ কালো দাগ পড়ে। কালো ছোপ থেকে ত্বককে মুক্ত করতে আলু বা শসার রস মুখে লাগান। ১৫ মিনিট রেখে ঠাণ্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

ত্বকে ভাঁজ: রোদে বের হওয়ার অন্তত মিনিট ১৫ আগে সানব্লক ক্রিম বা লোশন মুখ, গলা ও হাতে লাগান। দিনে অন্তত দুবার শসার ঠাণ্ডা রস মুখে লাগান।

ব্ল্যাক হেডস: সাধারণত নাকের চারপাশে ব্ল্যাক হেডস দেখা যায়। ধনেপাতার রস ও হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে প্রতিদিন রাতে লাগান। সকালে মুখ ধুয়ে ময়েশ্চারাইজার মাখুন। এক সপ্তাহেই ব্ল্যাক হেডস কমে যাবে।

মেছতা সমস্যা: মেছতার প্রধান কারণ রোদ ও আগুনের তাপ লাগা। চালের গুঁড়ো ও ডিমের সাদা অংশ একসঙ্গে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে সারা মুখে লাগান। এছাড়া লেবুর রস নিয়মিত লাগাতে পারেন। টক দই তুলা দিয়ে মুখে লাগালেও মেছতা কমবে।

এজ স্পট: বয়সের সঙ্গে সঙ্গে অনেকেরই মুখে বাদামি রঙের ছিট ছিট দাগ হয়। এগুলোকে বলে এজ স্পটস। অনেকক্ষণ রোদে থাকলে এগুলো হতে পারে। ঘোলে তুলা ভিজিয়ে দিনে দুবার ৫ মিনিট দাগের ওপর লাগান। এভাবে তিন মাস লাগান। এজ স্পট থাকবে না।

চোখের ফোলা ভাব: দুটি তুলার প্যাড তরল ঠাণ্ডা দুধে ভিজিয়ে চোখের ওপর রাখুন। তুলা নরম হয়ে এলে তা বদলে নিন। প্রতিদিন ১৫ মিনিট তুলার প্যাড চোখে লাগান, চোখের ফোলা ভাব কমবে।

হোয়াইট হেডস: হোয়াইট হেডস দূর করতে কর্নফ্লাওয়ার জলে মিশিয়ে এর সঙ্গে কয়েক ফোঁটা ভিনেগার মিলিয়ে হোয়াইট হেডসে লাগান। আধঘণ্টা পর কুসুম গরম জলে নরম কাপড় ভিজিয়ে তুলে ফেলুন। এরপর ঠাণ্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।