মেয়েদের সুরক্ষার নতুন রক্ষা কবজ, ‘আন্টি রেপ জিন্স’ ! যা তৈরি করলো দুই ভারতীয় নারী। সম্পূর্ণটি পড়ুন, গর্বিত হবেন

More articles

টোটকা24×7 নিউজ ডেস্ক, দেবপ্রিয়া সরকার : আন্টি রেপ জিন্স আবিস্কার করে নজির গড়ল বারানসির দুই যুবতী ছাত্রী। পরীক্ষা নিরীক্ষা করে জানা গেছে এটি এমন একটি জিন্স যা পরিহীত অবস্থায় কোনো যুবতী রেপ এর শিকার হলে সহজেই সেই সিগন্যাল স্থানীয় পুলিশের কাছে পৌঁছে যাবে এবং এই সিগন্যাল নির্যাতিত যুবতীর লোকেশন খুঁজতে পুলিশকে সাহায্য করবে। এই জিন্স আবিষ্কারকারী দুই যুবতী হলো বছর একুশের দীক্ষা পাঠক ও বছর তেইশের অঞ্জলি শ্রীবাস্তব। তাদের বক্তব্য অনুযায়ী , এই জিন্সে এমন একটি ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস আছে যার ফ্রিকোয়েন্সি অনেক দ্রুত কাজ করতে সক্ষম৷ এর সার্কিটে সাধারন মোবাইল চিপ ব্যবহার করা হয়েছে যাতে এমারজেন্সী নম্বর সেট করা যায়৷ এর মাধ্যমে ডিভাইসটি চেপে ধরলেই স্থানীয় পুলিশ স্টেশনে লোকেশন ট্রাক হয়ে ফোন চলে যাবে এবং যতক্ষণ না কল রিসিভ হবে ততক্ষণ অবধি ভাইব্রেশন হতে থাকবে৷ এরপরে সার্ভিলেন্সের মাধ্যমে ট্রাক হওয়া লোকেশন খুঁজে পুলিশ খুব সহজেই নির্যাতিতার ঘটনাস্থলের পৌঁছতে পারবে৷ তিন মাস পর পর ডিভাইসটির ব্যাটারি বদল করতে হবে। অর্থাৎ ব্যাটারি বদলের আগে এই জিন্সটিকে প্রায় তিন মাস ব্যবহার করা যেতে পারে। জিন্সের সাথে সংযুক্ত ডিভাইসটির অ্যালার্ম পাওয়ার জন্য বারাণসী সংলগ্ন এলাকার প্রায় ২০০টি থানায় নির্দিষ্ট টেকনোলজি সেটআপ তৈরি করা হয়েছে৷ আগামী মাসেই এটি টেস্ট করা হবে৷ ডিভাইসটির কার্যকারীতা সফল হয় তবে সারা দেশে এই পরিষেবা চালু করার দাবি ঘোষণা করা হবে৷

এই আন্টি রেপ জিন্স আবিস্কারক দুই যুবতী জানিয়েছে, গোটা দেশে ধর্ষণের ঘটনা যে পরিমাণে বেড়ে যাচ্ছে তার পরিপ্রেক্ষিতেই অ্যান্টি রেপ জিন্স তৈরি করার কথা তাদের মাথায় আসে৷ সরকারি গননা অনুযায়ী ভারতে প্রতি ২২ মিনিট অন্তরে একটি ধর্ষণের ঘটনা ঘটে৷ ইলেক্ট্রনিক্স কমিউনিকেশ বিভাগের ছাত্রী দীক্ষা পাঠক এ বিষয়ে জানান, ‘’আমরা অনেকদিন ধরেই এই ডিভাইস বানানোর কথা ভাবছিলাম৷ আমি দেরী করে বাড়ি ফিরলেই আমার বাবা চিন্তায় অসুস্থ হয়ে পড়েন৷ সম্প্রতি ঘটা গণধর্ষণের ঘটনায় আমি ও আমার বন্ধুরা সকলেই বেশ ঘাবড়ে গিয়েছি৷ আমাদের আশা, যে মহিলারা আমাদের বানানো কাপড় পড়বেন তাদের এই ধরনের কটূ পরিস্থিতিতে পড়তে হবে না৷’’ এই কাজে দীক্ষার সঙ্গে তার বন্ধু ও অঞ্জলীও সমান অংশীদার

Latest