এক রহস্যময় দ্বীপ! যেখানে কেউ গেলে সে আর ফিরে আসেনা

More articles

বঙ্গোপসাগরের আন্দামান-নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের অধীনে রয়েছে ভয়ঙ্কর একটি দ্বীপ যার নাম নর্থ সেন্টিনেল। এই দ্বীপে আধুনিকতার একটুও ছোঁয়া লাগেনি এবং অন্য কোন মানুষের এ দ্বীপে প্রবেশ নিষিদ্ধ কেন জানেন?হেলিকপ্টার ব্যবহার করে এই দ্বীপটি সম্পর্কে বিশেষজ্ঞরা নানান বিষয় জানার চেষ্টা করেন। তবে তারা আন্দাজ করতে পেরেছেন এই দ্বীপে প্রায় ৪০০ থেকে ৫০০ জন আদিবাসী বাস করেন। তারা চাষাবাদ জানে না। তারা শুধুমাত্র সমুদ্রে মৎস্য শিকার ও জঙ্গলের পশু শিকার করে জীবন যাপন করে।

বিজ্ঞানীদের মতে সেন্টিনেল দ্বীপে বসবাসকারী উপজাতিরা সম্ভবত এই বিশ্বের শেষ উপজাতি। যেখানে আধুনিকতার ছাপ এতোটুকু পড়েনি। এই অঞ্চলের অধিবাসীদের জীবনযাত্রা সম্পর্কে সঠিক কারো জানা নেই। কারন সেখানে গিয়ে কোন মানুষ তাদের সম্পর্কে জানা এটা তাদের পছন্দ না।বিশ্বের আরো যে সমস্ত উপজাতিরা রয়েছে তাদের থেকে এই সেন্টিনেল দ্বীপের উপজাতিরা সম্পূর্ণ আলাদা। তাদের মনের ভাব বিনিময় ও ভাষা কারো বোঝা সম্ভব নয়। তবে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, তারা আফ্রিকার কোন দ্বীপ থেকেই এই দ্বীপে ভেসে এসেছে।

১৯৮০ সালে একবার এক ব্রিটিশ নৃতত্ত্ববিদ এর দল ওই দ্বীপে যান এবং সেখানকার মানুষদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ যোগাযোগ করার স্থাপন করেন। তাদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য সেখানকার ৪ জন শিশুকে আধুনিক সমাজের কাছে নিয়ে আসেন। এর উদ্দেশ্য ছিল তাদেরকে সভ্য সমাজের আলো দেখানো।

কিন্তু সেই শিশুরা সভ্য সমাজের টিকতে না পেরে কয়েক মাসের মধ্যেই মারা যায় আর এই ঘটনার পর এই সেন্টিনেল দ্বীপ অধিবাসীরা আরো রেগে যায়। এই ঘটনার পর থেকে কাউকে তারা এই দ্বীপে প্রবেশ করতে দেয় না। এমনকি তাদের রাজ্যে যারা প্রবেশের চেষ্টা করেছিল বা তাদের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছিল তারা কেউ জীবিত অবস্থায় ফিরে আসেনি।

Latest