রথযাত্রা শেষ হলে পুরীতে জগন্নাথের রথের কি হয় জানেন? ৯৯% মানুশই জানেনা

More articles

গতকাল ছিল রথযাত্রা।জগন্নাথ দেব বলরাম সুভদ্রা এই তিন ভাই বোন রথে করে বেরোয় তারপর মাসির বাড়ি যায়।কাঠের রথে করে।পুরীতে আবার শুধু এই তিন জন নন।সঙ্গে যান বিশ্বনাথ ও দেবী বিশালক্ষী মানে হর ও পার্বতীর রথ যাত্রা হয়।অনেক স্থানে কৃষ্ণের ও রথ যাত্রা হয়। পুরীর মহারাজা রাস্তা ঝাড়ু দিয়ে পরিস্কার করে রথ যাত্রা শুরু করেন।মোট একশো আট কেজি সোনার গহনাতে সজ্জিত থাকেন এদিন তিন ভাই বোন।

৮৩২ টুকরো দিয়ে ১৬ চাকার রথে ঘোরেন জগন্নাথ বলরাম সুভদ্রা। পুরীর এই রথ প্রতিবছর ই নির্মিত হয় নতুন করে।এই রথের নানা বৈশিষ্ট্য আছে। মানবদেহে যেমন ২০৬ টি হাড় আছে পুরীর রথ ও তেমনি নির্মিত হয় ২০৬ টি কাঠ দিয়ে। এই কাঠ প্রতিবছর মহা নদী র স্রোতে ভেসে আসে ।তারপর রথ নির্মিত হয়।সেই রথে প্রাণ দেন রথে অধিষ্ঠিত দেবতা।আসলে এর দ্বারা বোঝানো হয় মানবদেহ একটি রথ ।সেই রথের চালক হলেন জগতের নাথ জগন্নাথ।

পুরীর রথের মোট ৪২ টি চাকা থাকে।জগন্নাথ বলরাম সুভদ্রার আলাদা আলাদা তিনটি রথ।জগন্নাথের রথের নাম কপিধ্বজ । বলরামের রথের নাম হল ধ্বজ।সুভদ্রার রথের নাম পদ্মধ্বজ।জগন্নাথ একবার রথ থেকে নেমে গেলে আর ঐ রথে চাপেননা।তখন ঐ রথের কাঠ দিয়ে ভোগ রান্না হয়।রথের ছাউনি তৈরি হয় কাপড় দিয়ে।বারোশ মিটার কাপড় লাগে এর জন্য।

Latest