যে ৬টি কারণে আপনি আপনার ত্বকের যত্নে সজনে ব্যবহার করবেন, দেখেনিন

সজনে ডাঁটা আমাদের সকলেরই অত্যন্ত পরিচিত। এর স্বাস্থ্যগুণ সম্পর্কে আমরা কমবেশি সকলেই মোটামুটি ওয়াকিবহাল। বিভিন্ন তরকারি, স্যুপ এবং সামবার ডাল, আচার ইত্যাদি প্রস্তুতিতে সজনে ডাঁটা ব্যবহার করা হয়। সজনের শুধুমাত্র ডাঁটাই নয়, এই গাছের বিভিন্ন উপাদান যেমন ফুল, পাতা, ফল, বীজ সবেরই কিছু না কিছু গুণাগুণ আছেই। কিন্তু আপনি কি জানেন ত্বকের যত্নের জন্যও সজনের গুরুত্ব অপরিসীম? আর সারা বিশ্বের মানুষ আজ সৌন্দর্যবর্ধক হিসাবে সজনের ব্যবহার শুরু করেছে।

সজনের পাতা কীভাবে আমাদের ত্বকের উপকার করে জেনে নিনঃ

ত্বকের বার্ধক্য রোধ করে: সজনের তেল এবং সজনে পাতার গুঁড়ো ত্বকের বলিরেখা এবং ত্বকের ক্ষত দূর করে। এছাড়াও সজনে আমাদের ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বৃদ্ধি করে এবং ত্বকের কুঁচকানো ভাব, বলিরেখা এবং বিভিন্ন দাগ ছোপ দূর করে আমাদের ত্বকের যৌবন বজায় রাখে।

ঠোঁটের আর্দ্রতা বজায় রাখে: সজনের তেল আমরা ঠোঁটের যত্নে ব্যবহার করতে পারি। এটা স্পর্শকাতর ত্বক এবং ঠোঁটের যত্নে ব্যবহৃত হয়।

আমাদের ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করে: ত্বকের বলিরেখা, দাগ ছোপ এবং এন্যান্য সমস্যা দূর করে। ফলে আমাদের ত্বকের রঙ উজ্জ্বল হয়।

ব্রণর সমস্যা দূর করে: সজনের তেলে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান থাকায় এটা ব্যবহার করলে ব্রণর সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়া যায়। তবে ব্যবহারের আগে একজন ত্বক বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়া অবশ্যই প্রয়োজন।

টক্সিন দূর করতে সাহায্য করে: টক্সিনের ফলেই ত্বকে ব্রণ এবং বিভিন্ন দাগ ছোপের সমস্যা দেখা যায়। সজনের গুঁড়ো কিংবা সজনের বীজ গ্রহণ করলে রক্ত পরিশ্রুত হয় যার ফলে ত্বক পরিষ্কার ও স্বাস্থ্যকর হয়।

ত্বকের ছিদ্র বন্ধ করে: সজনে আমাদের ত্বকের বিভিন্ন ছিদ্র বন্ধ করতে সাহায্য করে। এটা ত্বকের প্রয়োজনীয় কলিজেন প্রোটিন উৎপাদনে সাহায্য করে যা ছিদ্র বন্ধ হতে সাহায্য করে।

ত্বকের উপকারে সজনে ফেস মাস্ক কীভাবে তৈরি করবেন?

সজনে গুঁড়োর প্রচুর গুণাগুণ থাকায় এটা ফেস মাস্ক হিসাবে ব্যবহার করা সম্ভব। রোদে শুকানো সজনে পাতা ভাল করে গুঁড়ো করে পাউডার প্রস্তুত করা হয়। ফেস মাস্ক প্রস্তুতির জন্য এর সঙ্গে মধু, গোলাপ জল, লেবুর রস এবং জল প্রয়োজন।

আধ টেবিল চামচ সজনে গুঁড়োর সঙ্গে এক টেবিল চামচ মধু, এক টেবিল চামচ গোলাপ জল এবং আধ টেবিল চামচ লেবুর রস যোগ করুন।
ঘনত্ব বুঝে প্রয়োজনে জল যোগ করুন। ঘন এবং মসৃণ পেস্ট তৈরি করুন।
সকালে এটা মুখে লাগিয়ে দোষ মিনিট রেখে দিন। তারপর ঈষদুষ্ণ জলে ধুয়ে ফেলুন।
পরিষ্কার, শুকনো তয়ালে দিয়ে মুছে সামান্য ময়েশ্চারাইজার মাখুন। ত্বক উজ্জ্বল, নরম ও মসৃণ হবে।
ত্বকের পাশাপাশি গণ, মজবুত চুলের জন্যও সজনে গুঁড়ো উপকারী। অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদানের জন্য সজনে খুশকি এবং স্ক্যাল্পের শুষ্কভাব দূর করতে সাহায্য করে।rs

Related Posts

© 2022 Totka24x7 - Theme by WPEnjoy · Powered by WordPress