জীবনযাপন

নাক ডাকার বদ অভ্যাস থেকে যেভাবে মুক্তি পাবেন, জেনেনিন

রাতের ঘুম সবার জন্যই শান্তির অনুভতি। কিন্তু এই শান্তি তখনি অশান্তিতে পরিণত হয়ে যায় যখন কিনা পাশের জনের নাক ডাকার (snoring) শব্দে আপনার ঘুম আসছে না। আর এই নাক ডাকা নিয়ে অনেক পরিবারেই দেখা দেয় অশান্তি। এমনি অনেক অভিযোগ পাওয়া যায়, নাক ডাকা নিয়ে পরিবারে দেখা দেয় বড় ধরনের সমস্যা। নাক ডাকা রোধে বিভিন্ন জন বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছেন অনেকেই ইতোমধ্যে। কিন্তু সফলতা অনেকেই পেয়েছেন আবার অনেকেই পাননি। তবে, আমেরিকার নাক ডাকা সমস্যার সমাধানে তৈরি করেছেন একটি বিশেষ যন্ত্র। আর এই যন্ত্রের মাধ্যমেই আসতে পারে কাঙ্খিত সাফল্য।

চিকিত্সকেরা বলছেন, নাক ডাকা অন্য অনেক স্বাস্থ্যসমস্যার পাশাপাশি উচ্চ রক্তচাপ এমনকি স্ট্রোকের ঝুঁকির আলামতও হতে পারে। লন্ডনের দ্য প্রাইভেট ক্লিনিকের নাক-কান-গলারোগ বিষয়ক বিশেষজ্ঞ শল্য চিকিত্সক নাক ডাকার বেশ কয়েকিট কারণ উল্লেখ করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের একদল প্রযুক্তিবিদ ‘সাইলেন্ট পার্টনার’ (silent partner) নামের বিশেষ এক যন্ত্র বানিয়েছেন এমন অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে। এটি নাক ডাকার শব্দের তীব্রতা কমিয়ে দেবে (to quiet snoring noise!)। ফলে আশপাশে কারও সুনিদ্রায় বিঘ্ন ঘটবে না। কারণ ডিভাইসটি অনেকটা ‘নয়েজ-ক্যান্সেলিং’ হেডফোনের আদলে কাজ করবে। হালকা সংবেদিযুক্ত (সেন্সর) যন্ত্রটি নাকের দুই পাশে লাগানো থাকবে, শোয়ার সব রকমের ভঙ্গির জন্য এটি নিরাপদ। নতুন যন্ত্রটি নাকের ওপরে লাগিয়ে ঘুমালে সুফল পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছেন এই প্রকল্পের গবেষক নেটানেল আইয়াল।

তিনি আরও জানান, ঘুমন্ত মানুষের নাকের আওয়াজের নির্দিষ্ট কম্পাঙ্ক এবং ধরণ রয়েছে, যা কথাবার্তা বা অন্যান্য আওয়াজের চেয়ে ভিন্ন। তিনি ও তার সহযোগী গবেষকেরা এ যন্ত্রের ব্যাপারে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের কাছ থেকে ইতিবাচক সাড়া পেয়েছেন। ঘুমের মধ্যে শ্বাসকষ্টের রোগীদের কথা বিবেচনা করে এখন তারা যন্ত্রটির আরও উন্নত সংস্করণ তৈরির উদ্যোগ নিয়েছেন। প্রতি মাসে ডিভাইসে থাকা প্যাচ একবার পরিবর্তন করলেই হবে।

ডিভাইসটিতে পুনরায় রিচার্জযোগ্য ব্যাটারি, মাইক্রোফোন ও স্পিকার রয়েছে। মাইক্রোইউএসবি ওয়্যার এবং মোবাইল ফোন চার্জারের মাধ্যমে ডিভাইসটি চার্জ করা যাবে। ৯৯ ডলারের ওই ডিভাইসটির বাজারে চলে আসার কথা রয়েছে চলতি বছরের নভেম্বর নাগাদ।

Related Articles

Back to top button