বসিরহাটে বড়সড় মধুচক্রের পর্দাফাঁস , ১১ জন মহিলাকে উদ্ধার করল পুলিশ

More articles

টোটকা24×7 নিউজ ডেস্ক: আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে চোখে চোখে ফাঁকি দিয়ে নানা জায়গায় গড়ে উঠেছে মধুচক্র কেন্দ্র। পয়সার লোভে দেহ ব্যবসায় আসেন অনেকেই। আবার জোর করে বা টাকার লোভ দেখিয়ে দেহব্যবসায় নামানো হয়।এবার একটি বড়সড় মধুচক্রের পর্দাফাঁস করল পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে বসিরহাট রেজিস্ট্রি অফিস সংলগ্ন এলাকার একটি হোটেলে। কিছু দিন ধরে পুলিশের নজর রেখেছিল এই হোটেলের উপর এরপর একদিন গোপনে হানা দেয় তারা।

আজ সেখানে উদ্ধার করা হয়েছে 11 জন মহিলাকে এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে এখনো পর্যন্ত হোটেলের ম্যানেজার সহ আরো 12 জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বসিরহাট আদালতে তাদের তোলা হলে বিচারক তাদের পাঁচ দিনের পুলিশি হেফাজত আর বাকিদের 14 দিন জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন। তার সঙ্গে সিল করে দেওয়া হয় গোটা হোটেল। গত কয়েক মাস ধরে ভারত এবং বাংলাদেশ সীমান্ত শহর বসিরহাট ও টাকির বিভিন্ন হোটেলে দেহ ব্যবসা চলছিল।

সীমান্তের ওপার থেকে অল্প বয়সী মেয়েদের মোটা বেতনের লোভ দেখিয়ে বসিরহাটের কয়েকটি হোটেলে দেহ ব্যবসা চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ পেয়ে তদন্তে নামে পুলিশ। হোটেলে ঢুকে চক্ষু চড়কগাছ অবস্থা পুলিশের দেখা যায় রমরমিয়ে চলছে দেহ ব্যবসা। যে 11 জন মহিলাকে উদ্ধার করা হয়েছে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন পুলিশ কোথা থেকে তারা এসেছে বা তাদের জোর করে নিয়ে আসা হয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখছেন তারা সঙ্গে আরো নজরদারি বাড়ানো হবে বলে পুলিশের তরফ থেকে জানানো হয়েছে।

 

Latest