ওজন কমাতে এই ৪ প্রকার বিশেষ আটার রুটি খাবেন!

স্বাস্থ্য সচেতনরা সব সময়ই পুষ্টিকর খাবার পাতে রাখেন। তার মধ্যে অন্যতম হলো রুটি। কমবেশি সবাই সকালের নাস্তায় রুটি খান। যা স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। তবে কোন আটার রুটি খেলে ওজন দ্রুত কমবে তা হয়তো অনেকেরই জানা নেই। ভাতের তুলনা রুটিতে পুষ্টিগুণ বেশি থাকে। তাই রুটি খেলে ওজনে তেমন প্রভাব পড়ে না। পুষ্টিবিদদের মতে, ওজন কমাতে ৪ ধরনের আটা বেশ উপকারী। বর্তমানে অনলাইন কিংবা সুপারশপে আপনি পেয়ে যাবেন এসব আটা। এই ৪ ধরনের আটায় প্রচুর পরিমাণে ফাইবার ও পুষ্টিগুণ আছে।

ফলে নিয়মিত এসব আটার রুটি খেলে ওজন দ্রুত ঝরবে, পাশাপাশি শরীরেরও মিলবে অনেক উপকার। জেনে নিন কোন কোন আটার রুটি খাবেন-

জোয়ারের আটা
জোয়ারের ময়দায় থাকে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ফাইবার, ক্যালসিয়াম, আয়রন ও ভিটামিন। যা হজমশক্তি উন্নত করে।
যারা পেটের যাবতীয় সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য এই আটা বেশ উপকারী। এই ময়দা রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে ও হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। জোয়ারের রুটি তৈরি করতে সমস্যা হলে এর সঙ্গে গমের আটা মিশিয়ে রুটি বানাতে পারেন।

রাগির আটা
রাগি আটাতেও প্রচুর পরিমাণে ফাইবার ও অ্যামিনো অ্যাসিডে সমৃদ্ধ। এর উপকারী দিক হলো এই রুটি খেলে ক্ষুধা কমে যায়। এর ফলে অতিরিক্ত খাওয়ার ইচ্ছা দমন হয়। ফলে দ্রুত ওজন কমে। জোয়ারের রুটি আবার খুব সহজেই হজম হয়ে যায়।

বাজরার আটা
গ্লুটেনমুক্ত ও অধিক ফাইবারযুক্ত বাজরার আটাও স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। এতে প্রোটিন, ফাইবার, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রনসহ অন্যান্য পুষ্টি উপাদান থাকে। এই আটার রুটি খেলেও দীর্ঘক্ষণ আপনার ক্ষুধা লাগবে না। ফলে খুব সহজেই ওজন কমবে।

ওটসের আটা
ওটসের রুটি আপনাকে দীর্ঘ সময় ধরে শক্তি জোগাবে। এতে দ্রবণীয় ও অদ্রবণীয় ফাইবার থাকে। বলা হয়, ওটসের রুটি হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। এছাড়াও ডায়াবেটিসের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে এই আটার রুটি।

Related Posts

© 2022 Totka24x7 - Theme by WPEnjoy · Powered by WordPress