কফি এখন আমাদের অনেকেরই প্রতিদিনের সঙ্গী, ত্বক ফর্সা করতে কফি কিভাবে ব্যবহার করবেন, জেনেনিন

কফি এখন আমাদের অনেকেরই প্রতিদিনের সঙ্গী। সকালে কিংবা বিকেলে এককাপ কফি না হলে দিন চলে না যেন। বৃষ্টিতে বারান্দায় দাঁড়িয়ে এককাপ কফি, বন্ধুদের আড্ডা আরও প্রাণবন্ত করতে এককাপ কফি, বিষণ্নতা কাটাতে এককাপ কফি, অফিসে ব্যস্ততার ফাঁকে এককাপ কফি- কোথায় কফি নেই! স্বাস্থ্য সচেতনরা ব্ল্যাক কফি বেছে নিলেও বেশিরভাগেরই পছন্দ ক্যাপাচিনো বা কোল্ড কফি।

কফির উপকারিতা

কফিতে আছে ক্যাফেইন। যা টাইপ টু ডায়াবেটিস রোগের ঝুঁকি কমায় অনেকটাই। সেইসঙ্গে কমায় ক্যান্সারের ঝুঁকি। নিয়মিত কফি খেলে বাড়ে মানসিক শক্তি। বিষণ্নতা কাটাতে কফির জুড়ি নেই। যারা বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলা বা শরীরচর্চা করেন, তাদের জন্যও কফি উপকারী। এটি ক্লান্তি কাটাতে সাহায্য করে। কাজে মনোযোগ দেওয়ার জন্য কাজের ফাঁকে এককাপ কফি খেয়ে নিন। এরপর ফুরফুরে মেজাজে কাজ করতে পারবেন। তবে শুধু পানীয় হিসেবেই কফি জনপ্রিয় নয়, এর রয়েছে আরও অনেক ব্যবহার। এটি আমাদের ত্বকের যত্নেও সমান কার্যকরী।

ত্বকের যত্নে কফি

ত্বকের মৃত কোষ এবং ক্লান্ত-শ্রান্তভাব দূর করে ত্বককে উজ্জ্বল করতে কাজ করে কফি। আপনি যদি চান আপনার ত্বক আরও উজ্জ্বল হোক তবে কফি ব্যবহার করতে পারেন। এটি প্রাকৃতিক উপাদান বলে ত্বকের কোনো ক্ষতি হওয়ার ভয় নেই। ঘরে তো কফি থাকেই, ব্যবহার করতে দোষ কী! জেনে নিন ত্বক ফর্সা করতে কফির দুই ধরনের ব্যবহার-

ত্বকের রুক্ষতা দূর করতে

ধরুন আপনার ত্বক অনেক রুক্ষ। রুক্ষ ত্বকের জন্য অস্বস্তিতে পড়তে হয় মাঝে মাঝেই। মন ভরে সাজতেও পারেন না। সামান্য মেকআপ নিলেও তা ত্বকে ভেসে থাকে যেন। আবার রুক্ষতার কারণে ত্বক হয়েছে অমসৃণ। ফলে ত্বক আরও মলিন লাগছে দেখতে। এমন অবস্থায় আপনাকে সাহায্য করতে পারে কফি। সেজন্য প্রথমে এক চা চামচ কফি পাউডার ও আধা চা চামচ জল বা তরল দুধ নিন। এবার ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এরপর মিশ্রণটি অন্তত মিনিট পাঁচেক মুখে ম্যাসাজ করুন। ম্যাসাজ শেষে হালকা গরম জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। এতে ত্বকের রুক্ষতা দূর হওয়ার পাশাপাশি ত্বক উজ্জ্বল হয়ে উঠবে। ভালো ফল পেতে সপ্তাহে অন্তত একবার ব্যবহার করুন।

কফি-লেবুর ব্যবহার

এই পদ্ধতিতে যত্ন নেওয়ার জন্য প্রথমে এক চা চামচ চিনি, এক চা চামচ কফি পাউডার, এক টুকরো লেবুর রস ও আধা চা চামচ তরল দুধ নিতে হবে। এবার সব উপাদান ভালোভাবে মেশাতে হবে। মিশ্রণটি যেন পাতলা না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। পাতলা হয়ে গেলে তাতে সামান্য কফি যোগ করতে হবে। এবার এই মিশ্রণ মুখে পাঁচ-সাত মিনিট ধরে ম্যাসাজ করতে হবে। ম্যাসাজ হয়ে গেলে হালকা কুসুম গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। এ ধরনের রূপচর্চার জন্য রাতের সময়টাই সেরা। কারণ এরপর সারারাত ত্বক বিশ্রাম পায়। মুখ ধোওয়ার পর তাতে ত্বকের উপযোগী ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে ভুলবেন না

Related Posts

© 2023 Totka24x7 - Theme by WPEnjoy · Powered by WordPress