নদীয়ার শান্তিপুরে মানসিক ভারসাম্যহীন যুবতীকে মায়ের সামনে শ্লীলতাহানীর চেষ্টা পাড়ার এক যুবকের

মলয় দে নদীয়া:- নদীয়ার শান্তিপুর শহরের বেলগড়িয়া ২ নম্বর পঞ্চায়েতের অন্তর্গত এক মানসিক ভারসাম্যহীন ১৮ বছরের  বয়সী যুবতীকে তার মায়ের সামনে শ্লীলতাহানি অভিযোগ উঠল পাশের জোলপড়া বাসিন্দা সমরেশ বিশ্বাসের ৩২ বছর বয়সী ছেলে গৌতম বিশ্বাসের বিরুদ্ধে।

ঘটনাটি ঘটে গত ১৫ অক্টোবর বুধবার রাতে অন্য আর পাঁচটা রাতের মতো ঘরের দরজা বন্ধ করে মা-মেয়ে ঘুমিয়েছিল। আনুমানিক রাত্রি সাড়ে এগারোটা নাগাদ ওই যুবক অতি সন্তর্পণে দরজাটি খুলে অন্ধকার ঘরে প্রবেশ করে এবং এই মানসিক ভারসাম্যহীন যুবতীর শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে। কিছুক্ষণের মধ্যে মেয়ের গোঙরানিতে ঘুম ভেঙে যায় মায়ের। আলো জ্বালিয়ে প্রাথমিকভাবে কিছুই দেখতে পায় না।

পরবর্তীতে দেখে কেউ একজন ঘরের খাটের তলায় বসে আছে চোর চোর বলে চেঁচামেচি করতেই খাটের তলা থেকে বেরিয়ে আসে পাশের পাড়ার গৌতম। বালিশের ঢাকনা দিয়ে মুখ বাঁধা প্রায় বিবস্ত্র কন্যাকে দেখে বাবা-মা প্রহার করতে থাকে ওই যুবককে। এলাকাবাসীরা জড়ো হওয়ার আগেই চম্পট দেয় সে। এলাকাবাসীর পরামর্শ অনুযায়ী শান্তিপুর থানার ফোন করলে সাথে সাথে পুলিশ এসে আটক করে নিয়ে যায়।

রাত কাটতেই ওই যুবকের আত্মীয় পরিজন নানা মাধ্যমে লোক পাঠিয়ে নরমে গরমে বোঝাতে চেষ্টা করে থানায় লিখিত অভিযোগ না করার জন্য। এমনকি মৃত্যুর হুমকি পর্যন্ত দেয় ওই এলাকার গৌতমের এক বন্ধু তারক ।
ভয়ে অভিযোগ করতে সাহস পায়নি ওই যুবতীর মা-বাবা। অন্যদিকে লিখিত অভিযোগ না থাকায় ছেড়ে দিতে বাধ্য প্রশাসন।

দুদিন বাদে আজ স্থানীয় একটি প্রতিবন্ধী সংগঠনের সমবেত সিদ্ধান্তে তাদের প্রায় ৭০ জন সমর্থকের উপস্থিতিতে সন্ধ্যে সাতটা নাগাদ লিখিত অভিযোগ করে মা। এ বিষয়ে সংগঠনের পক্ষ থেকে জানানো হয় পুনরায় ওই দোষীদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছি প্রশাসনকে । দোষীদের শাস্তির না পেলে আগামীতে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলবেন তারা।